উদ্ভাস সাংস্কৃতিক জোট


একজন মানুষ আসলে পূর্ণাঙ্গ মানুষ হয়ে ওঠে তার সাংস্কৃতিক মুক্তিতে। এখান থেকেই অবসান ঘটে তার সকল সংকীর্ণতার। তাই সাংস্কৃতিক স্বাধীনতাটা জীবনের জন্যই অনিবার্য চাহিদা। কিন্তু গৎবাঁধা শিক্ষা ও সমাজ ব্যবস্থা এবং ভুল দিকনির্দেশনায় সাংস্কৃতিক বিকাশের জায়গাগুলো সংকুচিত হতে হতে এক পর্যায়ে মিলিয়েই যায়। উদ্ভাস সাংস্কৃতিক জোট সকল প্রকার সংস্কার ও সংকীর্ণতার বিরুদ্ধে সামাজিক দায়বদ্ধতার প্রামাণ্য দলিল। প্রতিটি মানুষই জন্মগতভাবে কোন না কোন সাংস্কৃতিক দক্ষতার অধিকারী, কিন্তু যথাযথ চর্চা-পরিচর্চার অভাবে বয়োঃবৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সেই দক্ষতাগুলো নষ্ট হয়ে যায়। উদ্ভাস সাংস্কৃতিক জোট শিক্ষার্থীদের সেইসব দক্ষতাগুলো খুঁজে বের করে সেগুলোর পূর্ণাঙ্গ বিকাশের ক্ষেত্রে একটা শক্তিশালী প্লাটফরম হিসেবে কাজ করে। কেউ হয়তো ভাল গান গায়, কেউ ভাল গল্প লেখে কিংবা কেউ ভাল গীটার বাজায়। এই প্রতিভাগুলোকে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেওয়াই সাংস্কৃতিক জোটের লক্ষ্য। আমরা অভিভাবকদের প্রমাণ দিতে চাই প্রতিভার চর্চা করেও পড়াশোনায় ভাল করা সম্ভব, প্রয়োজন শুধু উৎসাহ ও যথাযথ শৃঙ্খলাবোধ। উদ্ভাস সাংস্কৃতিক জোট সমাজের প্রতিও সমান দায়বদ্ধ। ২শে ফেব্রুয়ারি, ২শে মার্চ, ১৬ই ডিসেম্বর সহ প্রতিটি বিশেষ জাতীয় দিবসে নানান ধরনের কর্মকান্ডের মাধ্যমে সাংস্কৃতিক জোট সক্রিয় থাকে- যেমন হাতের লেখা প্রতিযোগিতা, উপস্থিত রচনা প্রতিযোগিতা, নাটক, কবিতা পাঠ প্রভৃতি।

বিস্তারিত- ০১৮১১৪১৫১১৪ (লেবু ভাইয়া)